রংপুরে ’নাগরিকদের নিরাপত্তা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় করণীয়’ শীর্ষক নাগরিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত

CG-Kaunia-1৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ সকাল ১১:০০ টায় নীলামখরিদা সদরা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ’নাগরিকদের নিরাপত্তা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় করণীয়’ শীর্ষক নাগরিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন কাউনিয়া উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ফকরুল আনাম, সহ সভাপতি, সুজন, রংপুর। প্রধান আলোচক হিসেবে অংশ নেন সুজন কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকার। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সুজন সদস্য জগদীশ চন্দ্র সিংহ।

আলোচক হিসেবে অংশ নেন বীর মুক্তিযাদ্ধা আফজাল আলী, সমাজ সংগঠক আজগর আলী, শামসুল হক, সুশান্ত কুমার ভট্টাচার্য্য, নৃপেন্দ্রনাথ মোহন্ত, আখতার আলী, শ্রী হংসধর বর্মন, ক্ষুদিরাম বর্মন, নছিম উদ্দিন খান, ডা. তুলারাম বর্মন, ফরহাদ সরকার, সাইদুল ইসলাম মানিক।
আলোচনায় উঠে আসে নির্বাচন পূর্ববর্তী, নির্বাচনকালীন এবং নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার কথা। এলাকায় নির্বাচনের দিন হামলা হওয়ায় এলাকাবাসী এখনও আতংকের মধ্যে দিনাতিপাত করছেন বলে বক্তাগণ উল্লেখ করেন। বক্তাগণ এলাকাবাসীকে একতাবদ্ধ হয়ে সহিংসতা প্রতিরোধে উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান। তারা বলেন, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ভূক্ত মানুষগুলোকও মনে রাখতে হবে- এ দেশ, এ মাটি আমার। জন্মগতভাবেই আমরা এদেশের নাগরিক। কারো অনুগ্রহে আমরা এখানে বসবাস করছি না। তাই যে কোন বিপদে ঐক্যবদ্ধভাবে আমাদের নিজেদেরকে রক্ষা করতে হবে। পাশাপাশি মনে রাখতে হবে আমরা একা নই। অনেক শুভাকাঙ্খি, প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, প্রগতিশীল রাজনৈতিক শক্তি এবং সমাজের শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ আছে আমাদের পাশে। আক্রান্ত হলে সকলের সহযোগিতা আমাদের প্রয়োজন। নিজভূমে পরবাসী না হয়ে, নাগরিক হিসেবে সকল প্রাপ্য অধিকার নিয়েই স্বদেশ ভূমিতে সকলকে বসবাস করতে হবে।

সুজন সমন্বয়কারী বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে আমরা মনে করছি, সরকার, প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে ব্যর্থ হচ্ছে। ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল আক্রান্তদের পাশে সঠিক সময়ে দাঁড়াচ্ছে না, বরং কোথাও কোথাও জড়িয়ে পড়ছে ঘটনার সঙ্গে। প্রগতিশীল রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনসমূহসহ সচেতন নাগরিকদেরকেও যথাসময়ে আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে দেখা যাচ্ছে না। প্রধান বিরোধীদল বিএনপি, জামায়াতসহ ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলসমূহের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে নিজেরাও এইসকল অপকর্মে সম্পৃক্ত হচ্ছে, কোথাও কোথাও তাঁরাই নেতৃত্ব দিচ্ছে। সংশ্লিষ্ট এলাকাসমূহের জনপ্রতিনিধিদেরকেও কার্যকর কোন উদ্যোগ গ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

অংশগ্রহণকারীগণ নাগরিকদের নিরাপত্তা রক্ষা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, জনপ্রতিনিধি ও সচেতন নাগরিক সমাজের করণীয় চিহ্নিত করে।
প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর করণীয়:
#    সাংবিধানিক অঙ্গীকার তথা আইনী বাধ্যবাধকতা অনুযায়ী সংখ্যালঘু সম্প্রদায়সহ নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা
#    কারো প্রভাবে প্রভাবিত না হয়ে নিরপেক্ষভাবে কাজ করা
#    নিরাপরাধ ব্যক্তিদের হয়রানী না করে প্রকৃত অপরাধীদের দ্রুত গ্রেফতার করা
#    অনাকাঙ্খিত ঘটনার পূর্বাভাস বা তথ্য পেলে পূর্ব থেকেই প্রতিরোধমুলক ব্যবস্থা গ্রহণ
#    দুর্ঘটনার সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথেই অপরাধীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া।

জনপ্রতিনিধিদের করণীয়:
#    বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে স্ব স্ব এলাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার পরিবেশ সৃষ্টি করা
#    নির্বাচনের পর নিজেকে এলাকার সকল ভোটার তথা জনগণের প্রতিনিধি ভাবা
#    সকল নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরনে সদা সতর্ক থাকা।

নাগরিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও সচেতন নাগরিকদের করণীয়:
#    নাগরিকদের ভেতর জাতীয়তাবোধ জাগ্রত করা
#    ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাসমূহে এই ধরনের ঘটনা প্রতিরোধে সদা সতর্ক থাকা
#    প্রতিটি ঘটনার ক্ষেত্রে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলা

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s